ঢাকা ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম
আরপিএমপি'র মাদক বিরোধী অভিযানে গ্রেফতার-১৫ ভোলা-৩ আসনে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের পোস্টার লাগানোর সময় সন্ত্রাসী হামলা সুনামগঞ্জে ঈদে মিলাদুন্নবী ও শেখ হাসিনার জন্মদিনে আ.লীগের দোয়া মাহফিল “বাজেট সংকটে নির্বাচনে পূর্ণাঙ্গ পর্যবেক্ষক পাঠাচ্ছে না ইইউ” তামিম ইস্যু নিয়ে ক্ষোভে ফুঁসছেন ভক্তরা বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের আভাস, বাড়তে পারে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে রাজধানীতে র‌্যালি বিএনপি ক্ষমতা এলে দেশের গণতন্ত্র ধ্বংস হয়ে যাবে: ওবায়দুল কাদের নির্বাচনী ইশতেহারে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় গুরুত্ব দেওয়া হবে’: ড. আবদুর রাজ্জাক একনজরে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচের সূচি

সরকার ইচ্ছেমতো সংবিধানের বিধি-বিধান তৈরি করছে : ফখরুল

#

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৬ মার্চ, ২০২৩,  2:45 PM

news image

সরকার নিজেদের ইচ্ছেমতো সংবিধানের বিধি-বিধান তৈরি করছে বলে মন্তব্য করেছেন করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, বর্তমান সরকার অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে রাষ্ট্রের মূল স্তম্ভগুলো ধ্বংস করছে। রাষ্ট্রের সঙ্গে জনগণের যে চুক্তি সেটা ভেঙে ফেলেছে। তারা নিজেদের ইচ্ছেমতো সংবিধানের বিধি-বিধান তৈরি করছে। অথচ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার আন্দোলন ইতিহাস ছিল গণতন্ত্রের ইতিহাস। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে ভিন্নমত হলেও কথা বলার স্বাধীনতা থাকবে। আজ স্বাধীনতার এত বছর পরেও বলতে হয়, দেশে কথা বলার স্বাধীনতা নেই, স্বাধীনতা চাই। বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ‘আগামীর বাংলাদেশ বিনির্মাণে ২৭ দফা রূপরেখার গুরুত্ব ও অপরিহার্য’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে ১২ দলীয় জোট।  বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে যে বাংলাদেশ আমরা সেটা চাইনি। অন্তত আমি এমন বাংলাদেশ চাইনি। এতে যদি আমায় কেউ ফাঁসি দেয়, দিতে পারে। আমরা চেয়েছি গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ, যেখানে জনগণের ভোটাধিকার থাকবে, আইনের শাসন, মানবাধিকার ও ন্যায়-সাম্য থাকবে। তিনি বলেন, আজ এমন একসময় আমরা আলোচনা সভা করছি, যার আগের দিন দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয়ে আইনজীবীদের নির্বাচনকে ঘিরে একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে। আমার তার তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানাচ্ছি। সুপ্রিম কোর্টের ন্যাক্কারজনক ঘটনা প্রমাণ করে, বর্তমানে বাংলাদেশে গণতন্ত্র তো নেই, আইনের শাসনও নেই। এমনকি সরকার আছে কি না আমার সন্দেহ। তথ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, ১৯৯৬ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার দাবিতে আপনারা জামায়াত ও জাতীয় পার্টি আন্দোলন করেছেন। সেদিন দাবি আদায়ে ১৭৩ দিন হরতাল করেছেন, গান পাউডার দিয়ে ১৭ জনকে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেছেন, লগি-বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে মানুষ হত্যা করেছেন।  এখন বলছেন বিএনপি আগুন সন্ত্রাস করে। আরে আগুন সন্ত্রাস তো আপনারাই শুরু করেছেন। লজ্জা করে না? এখন কথায় কথায় বলেন সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে, সভ্য দেশে তাই হয়। আমাদের স্পষ্ট কথা, যারা ক্ষমতায় আছে তারা অসভ্য মধ্যযুগীয় বর্বরতার চেয়েও খারাপ। যা কোনো সভ্য দেশে হতে পারে না। দেশের বুদ্ধিজীবীদের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে আমার খুব কষ্ট হয় যখন দেখি দেশে কিছু বুদ্ধিজীবী আছেন। যারা দেশের এই অনিয়ম ও দুর্নীতির ব্যবস্থাকে সমর্থন করেন। এমনভাবে তারা চাটুকারিতা করে চরম শীর্ষে চলে যান।  বিএনপির চলমান যুগপৎ আন্দোলন প্রসঙ্গে সাবেক এই প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই আন্দোলন বিএনপি কিংবা কোনো দল বা ব্যক্তির লড়াই-সংগ্রাম নয়। এটা দেশের ১৮ কোটি মানুষের বেঁচে থাকার সংগ্রাম। আসুন আমরা সবাই নেমে পড়ি। তাদেরকে সরিয়ে তত্ত্বাবধায়ক অধীনে নির্বাচনের ব্যবস্থা করি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুলের ‘সংবিধান বিতর্ক’ বইয়ের রেফারেন্স দিয়ে তিনি বলেন, ৭২ সালের সংবিধান প্রণয়নের আগে ১৯৭১ সালের আগে দুটি নির্বাচন হয়েছিল। একটি পাকিস্তান জাতীয় সংসদের, আরেকটি প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন। এরপর পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্যদের দিয়ে সংবিধান রচনার জন্য গণপরিষদ গঠন করা হয়। যারা দেশের বিভিন্ন বিষয় বিবেচনায় নিয়ে সংবিধান রচনা করেছিলেন। যেখানে গণতন্ত্র ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, মানবাধিকার সুরক্ষা ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। কিন্তু তার কোনটা আজকে আছে? সভায় সভাপতিত্ব করেন ১২ দলীয় জোটের সমন্বয়ক মোস্তফা জামাল হায়দার। এতে বক্তব্য রাখেন কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহিম ও বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসানুল হুদাসহ আরও অনেকে।

logo

সম্পাদক ও প্রকাশক : মো. নজরুল ইসলাম